1. press.shohel@gmail.com : banglardristi24.com :
  2. md92alilove@gmail.com : banglardristi24 : Ali hossain
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০২:১৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বাগেরহাটে গার্মেন্টস কর্মীকে ধর্ষণ, শ্রমিক লীগের সম্পাদকসহ গ্রেফতার ৫ বাগেরহাটে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের উদ্বোধন বাগেরহাটে জেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাস উদ্ধার। লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু বাগেরহাটে বিভিন্ন দূর্গাপূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন বন উপমন্ত্রীর মোংলা বন্দরে বিদেশী জাহাজের দ্বিতীয় প্রকৌশলীর মৃত্যু, মৃত্যুর কারণ জানতে ময়না তদন্ত বাগেরহাটে বৃষ্টির পানিতে ভেঁসে গেছে এক হাজার চিংড়ি ঘের ও পুকুরের মাছ, পানিবন্দী প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার, মোংলা বন্দরে পন্য ওঠানামা ব্যাহত বাগেরহাটে ষাটগুম্বজ মসজিদ ও যাদুঘর পরিদর্শন করলেন সংষ্কৃতি প্রতিমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধে বিদেশী বন্ধু ফাদার রিগনের তৃতীয় মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

অতিবৃষ্টি, উজান নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট বন্যায় প্রায় ৩৪৯ কোটি টাকার ফসলের ক্ষতি : কৃষিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ১১৪ বার পড়া হয়েছে:

অতিবৃষ্টি, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট বন্যায় প্রাথমিকভাবে প্রায় ৩৪৯ কোটি টাকার ফসলের ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।

বন্যা পরিস্থিতির আর অবনতি না হলে কৃষি মন্ত্রণালয় যেসব কর্মসূচি নিয়েছে তাতে ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠা যাবে এবং আমনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

সোমবার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষ থেকে কৃষি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বন্যার ক্ষয়ক্ষতি ও তা থেকে উত্তরণে করণীয় নিয়ে মতবিনিময় সভায় আব্দুর রাজ্জাক এসব তথ্য জানান বলে বার্তা সংস্থা ইউএনবির এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্ত্রীর দেওয়া তথ্যানুসারে, গত ২৫ জুন হতে ৯ জুলাই পর্যন্ত প্রথম পর্যায়ের বন্যায় মোট ১৪টি জেলায় ১১টি ফসলের প্রায় ৭৬ হাজার ২১০ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার মধ্যে ৪১ হাজার ৯১৮ হেক্টর জমি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

জেলাগুলো হলো- রংপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জ, জামালপুর, নেত্রকোনা, রাজশাহী, মানিকগঞ্জ, ফরিদপুর ও টাঙ্গাইল। এসব এলাকায় মোট ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের সংখ্যা তিন লাখ ৪৪ হাজার জন।

দ্বিতীয় পর্যায়ে ১১ জুলাই হতে ১৯ জুলাই পর্যন্ত মানিকগঞ্জ, বগুড়া, টাংগাইল, নাটোর, নওগাঁ, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, জামালপুর, রাজশাহী, দিনাজপুর, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, ময়মনসিংহ, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, শেরপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আগের ১৪টিসহ মোট ২৬টি জেলায় ১৩টি ফসলের প্রায় ৮৩ হাজার হেক্টর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ফসলের পরিমাণ এখনো নিরূপণ করা হয়নি।

কৃষি মন্ত্রণালয় ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। এগুলোর মধ্যে অধিক ক্ষতিগ্রস্ত জেলাসমূহে কৃষকের জমিতে প্রায় দুই কোটি ১৫ লাখ টাকার কমিউনিটিভিত্তিক রোপা আমন ধানের চারা উৎপাদন ও ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষকের মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ, প্রায় ৭০ লাখ টাকার ভাসমান বেডে রোপা আমন ধানের চারা উৎপাদন, ৫৪ লাখ টাকার মাধ্যমে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে রোপণের জন্য ট্রেতে নাবি জাতের আমন ধানের চারা উৎপাদন ও ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষকের মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ এবং ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় আমন চাষ সম্ভব না হলে ৫০ হাজার কৃষকের মধ্যে প্রায় তিন কোটি ৮২ লাখ টাকার মাষ কলাই বীজ ও সার দেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার