1. press.shohel@gmail.com : banglardristi24.com :
  2. md92alilove@gmail.com : banglardristi24 : Ali hossain
মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:২১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বাগেরহাটে শেখ রাজিয়া নাসের এর মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। জেলা শ্রমিলীগের: কিশোর গ্যাং নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকে হুমকি বাগেরহাট জেলা উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য শরণখোলা উপজেলার অধিগ্রহণকৃত জমির ক্ষতিপূরণের টাকা জনগণের দোরগোড়ায় পৌছানো বিষয়ক উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাগেরহাটে মাদ্রাসায় পড়া শিশু মেয়েকে ধর্ষন, বখাটে আটক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সহোদর শহীদ শেখ আবু নাসেরের সহধর্মিনী,রিজিয়া নাসের এর রুহের মাগফিরাত কামনায় স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল। খুলনায় দু’দিনব্যাপী অনাড়ম্বর আয়োজনে “ভ্রমণকন্যার” ৪র্থ বর্ষপূর্তি উদযাপন লক্ষ্মীপুরে শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তার পুরস্কার পেলেন রায়পুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল জলিল। বাগেরহাটে নানা আয়োজনে “ভ্রমণকন্যার” ৪র্থ বর্ষপূর্তি উদযাপিত বাংলাদেশ ৬৪ জেলা সাংবাদিক ফোরামের বাগেরহাট জেলা আহবায়ক কমিটি গঠন লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মাস্ক না পড়ায় ৩৮ জনকে জরিমানা

বাগেরহাটে বৃষ্টির পানিতে ভেঁসে গেছে এক হাজার চিংড়ি ঘের ও পুকুরের মাছ, পানিবন্দী প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার, মোংলা বন্দরে পন্য ওঠানামা ব্যাহত

মোঃ আলি হোসেন মোল্লা বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম: শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০৪ বার পড়া হয়েছে:

বাগেরহাট প্রতিনিধি :
বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্মচাপের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটে গত দু’দিন ধরে অবিরাম ভারী বৃষ্টিপাতে নি¤œাঞ্চলের কয়েক হাজার বাড়ীঘর প্লাবিত হয়েছে। বৃষ্টির পানিতে ভেঁসে গেছে প্রায় এক হাজার চিংড়ি ঘের (খামার) ও পুকুরের মাছ। মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা, রামপাল, মোংলা, বাগেরহাট সদর, চিতলমারী, কচুয়া ও ফকিরহাট উপজেলার নি¤œাঞ্চল তলিয়ে গেছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার। হাজার- হাজার বাড়ীঘরে পানি প্রবেশ করায় রান্না খাওয়ায় সমস্যা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা। অসময়ে অবিরাম ভারী বৃষ্টিপাতে বাড়ীঘর তলিয়ে যাওয়া পরিবারগুলো অবর্ননিয় দূর্দশায় পড়েছে। এদিকে অবিরাম ভারী বৃষ্টিপাতে মোংলা বন্দরে পন্য ওঠানামার কাজও দারুর ভাবে ব্যাহত হচ্ছে বলে জানিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।


বাগেরহাটের শরণখোলায় পোস্ট অফিসসহ তিন গ্রাম তলিয়ে গেছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার। আঞ্চলিক মহাসড়কের বিশাল অংশ ধসে গিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে যান চলাচল। ডুবে আছে কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ। প্লাবিত হয়ে ভেসে গেছে চিংড়ি খামার ও পুকুরের মাছ। সারাদিনে রান্না হয়নি কয়েক শত পরিবারে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে বাসিন্দারা। বিকেলে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলা সদরের রায়েন্দা বাজারের পূর্বাংশ এবং রায়েন্দা সরকারি পাইল হাই স্কুলের পশ্চি পাশ থেকে টিএন্ডটি এলাকা, খাদ্যগুদাম এলাকা, পাঁচরাস্তা ও বান্দাঘাটা এলাকার প্রায় সহ¯্রাধিক পরিবারের বাড়িঘরে হাঁটু পানি জমে রয়েছে। ওই এলাকা অবস্থিত সরকারি পোস্ট অফিসের মধ্যেও পানি উঠে গেছে। এছাড়া, রায়েন্দা বাজারের পুরাতন পোস্ট অফিস এলাকা, উত্তর কদমতলা পুরো গ্রাম ও কেজি স্কুল এলাকার আরো প্রায় দুই হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। সাইনবোর্ড-বগী আঞ্চলিক মহাসড়কের শরণখোলা উপজেলা সদরের রায়েন্দা সেতুর দক্ষিণ পারের সংযোগ সড়কের দুটি পয়েন্টে ব্যাপক ধস দেখা দিয়েছে। যে কোনো সময় পুরো সড়ক ধসে যানবাহন চলাচল বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশংকা রয়েছে। একই ভাবে মোড়েলগঞ্জ, রামপাল, মোংলা, বাগেরহাট সদর, চিতলমারী, কচুয়া ও ফকিরহাট উপজেলার নি¤œাঞ্চল তলিয়ে গেছে। এসব উপজেলার নি¤œাঞ্চলসহ বাগেরহাট শহর, মোরেলগঞ্জ ও মোংলা পোর্ট পৌরসভার নি¤œাঞ্চলের রাস্তাঘাট ও বাড়ীঘর বৃষ্টির পানিতে তরিয়ে গেছে। এসব এলাকায় জন দুর্ভোগ বেড়েছে। প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছেনা। বৃষ্টিতে নিন্ম আয়ের মানুষের সব থেকে বেশী ভোগান্তি পড়েছে।


বাগেরহাট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. খালেদ কনক জানান,দুই দিনের ভারী বৃষ্টিপাতে জেলার রামপাল, মোংলা, বাগেরহাট সদর, চিতলমারী, কচুয়া, মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা, ও ফকিরহাট উপজেলার কয়েক হাজার চিংড়ি ও পুকুরের মাছ ভেঁসে যাওয়ার খবর পায়া গেছে। মৎস্য বিভাগ মাঠ পর্য্যায়ে ভেঁসে যাওয়া চিংড়ি ঘের ও পুকুরের সংখ্যা এবং ক্ষয়ক্ষতি নিরুপনের কাজ চলছে। কয়েক দিনের মধ্যে চিংড়ি ঘের ও পুকুরের সংখ্যা এবং ক্ষয়ক্ষতি পরিমান জানা সম্ভব হবে।
মোংলা বন্দরে হারবার মাস্টার মো. ফকর উদ্দিন বলেন, মোংলা বন্দরে বর্তমানে ইউরিয়া সার, সিমেন্ট তৈরির কাঁচামাল এলপিজি গ্যাসসহ মোট ১১টি পন্যবাহি জাহাজ অবস্থান করছে। বৈরি আবহাওয়ায় জাহাজ থেকে পন্য ওঠানামার কাজ ব্যাহত হচ্ছে। তবে বৃষ্টি বন্ধ হলেই জাহাজে পন্য ওঠানামার কাজ চলছে।


বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক সঞ্জয় কুমার দাস বলেন, এই বৃষ্টিতে শীতকালিন সবজি ও মাঠে থাকা আমন ধানের কোন ক্ষতি হবে না। তবে এই বৃষ্টি আরও দুয়েকদিন অব্যাহত থাকলে মাঠে থাকা ফসলের ক্ষতির সম্ভববনা রয়েছে। বাগেরহাটে শীতকালিন সবজির মধ্যে টমেটোর আবাদ সবচেয়ে বেশি হয়। এখন পর্যন্ত সাতশ হেক্টর জমিতে টমেটোর আবাদ হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার